সত্যিই কি যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে যুক্তরাষ্ট্র-ইরান?

0
63

পিভিউ আন্তজাতিক ডেস্ক :   যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে মার্কিন সেনাবাহিনী ইরাকে হামলা চালিয়ে হত্যা করে ইরানের প্রভাবশালী সামরিক কমান্ডার এবং বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর কুদস ফোর্সের প্রধান কাসেম সোলেমানিকে। এরপরই ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে ইরান। তেহরান ও ওয়াশিংটনের মধ্যে যেন যুদ্ধের দামামা বাজছে। বিশ্ববাসীর প্রশ্ন এখন একটাই, সত্যিই কি যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে যুক্তরাষ্ট্র ও ইরান?

অনেকেই অভিযোগের আঙুল তুলছেন ট্রাম্পের দিকে; বলছেন, অভিশংসন থেকে সবার মনোযোগ সরিয়ে দেওয়ার জন্যেই এ কাজ করেছেন ট্রাম্প। ইরানের মতো শত্রুপক্ষের বিরুদ্ধে যে চাইলেই মার্কিন সেনাবাহিনী ব্যবহার করার সাহস রয়েছে তার, এমন একটি বার্তা দিলেন যেন।

বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) দিনগত রাতে হত্যা করা হয় সোলেমানিকে। তিনি এমন এক ব্যক্তি, যিনি যুক্তরাষ্ট্র ও এর মধ্যপ্রাচ্যের মিত্রদেশগুলোর বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় হামলা চালিয়েছেন। শুধু ট্রাম্প নয়, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্টদের অনেকেই তাদের সময়ে সোলেমানি ও ইরাকের ইরান-সমর্থিত মিলিশিয়া বাহিনীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি জানালেও বিভিন্ন পররাষ্ট্রনীতির কারণেই সেটি বাস্তবে রূপ দেননি।

পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই হঠাৎ সোলেমানিকে হত্যা করা হয়। এর পেছনে রয়েছে তেহরান ও ওয়াশিংটনের মধ্যকার দীর্ঘদিনের উত্তপ্ত পরিস্থিতি। মঙ্গলবার (৩১ ডিসেম্বর) ইরান-সমর্থিত ইরাকি মিলিশিয়া বাহিনীর সমর্থকরা হামলা চালিয়েছে বাগদাদে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসে। এ হামলার কারণ ছিল গত রোববার (২৯ ডিসেম্বর) ইরান সমর্থিত ইরাকি মিলিশিয়া ‘কাতাইব হিজবুল্লাহ’র ঘাঁটিতে বিমান হামলা চালায় মার্কিন সেনারা। এতে অন্তত ২৫ যোদ্ধা নিহত ও ৫৫ জন আহত হয়। রোববারের হামলার কারণ ছিল, এর আগে ওই মিলিশিয়া বাহিনী একটি সামরিক ঘাঁটির ওপর রকেট হামলা চালিয়ে একজন আমেরিকান ঠিকাদারকে হত্যা ও এক মার্কিন সেনাকে আহত করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here