বাজেট বিকেলে: রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য পূরণই বড় চ্যালেঞ্জ

0
305

পিভিউ ডেস্ক :   নতুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা হবে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন)। জাতীয় সংসদে বিকেল ৩টায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ, সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শিরোনামে এ খসড়া বাজেট পেশ করবেন।

এটি অর্থমন্ত্রী হিসেবে তার প্রথম বাজেট। আর বাংলাদেশের ৪৯তম, আওয়ামী লীগ সরকারের টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর চলতি মেয়াদের প্রথম ও টানা ১১তম বাজেট। প্রাথমিকভাবে আসছে বাজেটের মোট ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা, যা জিডিপির ১৮ দশমিক ১ শতাংশ। এবারের বাজেটে বড় আকারের ব্যয় মেটাতে মোট রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। এটি জিডিপির ১৩ দশমিক ১ শতাংশের সমান। বিদায়ী অর্থবছরে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য হচ্ছে ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা। নতুন বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ৩৮ হাজার ৫৩০ কোটি টাকা বেশি ধরা হয়েছে। ফলে বড় আকারের বাজেট বাস্তবায়নে রাজস্ব আদায়ের ওপর জোর দেওয়া হলেও নতুন বাজেটে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য পূরণই বড় চ্যালেঞ্জ মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এজন্য আসছে বাজেটে রাজস্ব ব্যবস্থাপনায় বড় সংস্কারে কথা উল্লেখ থাকবে। তবে করের পরিমাণ না বাড়িয়ে করের আওতা বাড়ানোর দিকে মনোযোগ দেওয়া হবে। ১ জুলাই থেকে কার্যকর করা হবে নতুন ভ্যাট আইন। রাজস্ব আদায় বাড়াতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) আরও শক্তিশালী করা হবে। আউটসোর্সিং করে বাড়ানো হবে এর জনবল। রাজধানীর ভবন মালিকদের থেকে কর আদায় করার ঘোষণা থাকবে নতুন বাজেটে। ১০ হাজার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীকে নিয়োগ দিয়ে ছয় মাসে নতুন ৮৫ লাখ করদাতা খুঁজে বের করা হবে। জনগণকে রাখা হবে ভ্যাট ও করের চাপমুক্ত। কর্পোরেট করসহ ক্ষেত্রবিশেষে কর হার কমানো হবে। তবে সাধারণ মানুষের করমুক্ত আয়ের সীমায় বড় পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই। অবশ্য আমদানি পর্যায়ে রাজস্ব আয় বাড়াতে দেশের সব বন্দরে বসানো হবে স্ক্যানার মেশিন। এসব লক্ষ্য সামনে রেখেই নতুন অর্থবছরের বাজেটে এনবিআরকে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা দেওয়া হচ্ছে। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here