বাংলাদেশে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জীবন যেমন

0
14
ছবি-হিন্দুস্থান টা্ইমস

 বিবিসি

  বাংলাদেশে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী মানুষের সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৯ লাখ আর মাঝারি থেকে তীব্র চোখের সমস্যায় ভোগেন প্রায় ৭৫ লাখ মানুষ।

দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের অনেকেই নানা ধরণের হয়রানির শিকার হন।অনেক সময় পরিবারের কাছ থেকেই বৈষম্যের শিকার হয়ে থাকেন তারা।

মোহাম্মদ হাসানের বয়স যখন মাত্র তিন বছর তখন তার চোখ ওঠে। পরিবারে অস্বচ্ছলতার কারণে সে সময় ভাল কোন চিকিৎসক দেখাতে পারেননি।

পরে তার বাবা মা প্রতিবেশীদের কথামতো তাকে স্থানীয় কবিরাজের কাছে নিয়ে যান। কবিরাজ জানান তার স্বপ্নে পাওয়া ওষুধ চোখে দিলেই এই রোগ সেরে যাবে।

পরে কবিরাজ কিছু পাতার রস হাসানের চোখের ভেতর দিয়ে দিলে পুরো চোখটাই গলে যায় তার। চীর জীবনের মতো হাসান হারিয়ে ফেলেন তার দৃষ্টিশক্তি।

হাসান বর্তমানে তার উচ্চশিক্ষা শেষে বাংলাদেশ ভিজুয়াল ইমপেয়ারড সোসাইটির আইটি কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করছেন।

তারপরও ঢাকার ফুটপাত বেদখল, এবড়োখেবড়ো পথ, যেখানে সেখানে বৈদ্যুতিক খুঁটি, খোলা ম্যানহল এই শহরে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের পা ফেলাই বিপদজনক করে তুলেছে।

তারমধ্যে সেই দৃষ্টি প্রতিবন্ধী যদি নারী হন তাহলে তাকে শিকার হতে হয় আরও নানা হয়রানির।

দৃষ্টি প্রতিবন্ধী উজ্জ্বলা বনিক তার কিছু অভিজ্ঞতার কথা বিবিসিকে জানান,

“আমরা চোখে দেখতে পারিনা। এজন্য যদি কারো কাছে সাহায্য চাই তাহলে অনেকেই সেটার বাজে সুযোগ নেয়। রিকসায় উঠতে যাব বা বাসে চড়বো, খুব আপত্তিকরভাবে ছোঁয়। একদিন একজনকে বলেছিলাম আমাকে রাস্তা পার হতে যদি সহযোগিতা করতেন। লোকটা আমার হাতে না ধরে দুই বাহুতে ধরলো, মানে তারা আসলে জানে না।”

এ ধরণের আরও নানা হয়রানির কথা জানান দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এবং বাংলাদেশ ভিজুয়াল ইমপেয়ারড পিপলস সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক, নাজমা আরা বেগম পপি।

“রাস্তায় মানে খুবই বাজে অবস্থা। বাসে চলা তো খুব রিস্কি। এই গায়ে হাত দেবে, নাহলে ব্যাগ থেকে কিছু নিয়ে যাবে। এজন্য আমি সিএনজি না’হলে উবারের গাড়ি ডেকে চড়ি। এতে আমার অনেক খরচ হলেও কিছু করার নেই করতে হয়।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here